Media
Trending

অস্কার 2020 এর মঞ্চে যা হলোঃ পর্ব (1)

অস্কার 2020 এর মঞ্চে যা হলোঃ পর্ব (1)

এই একটি দিনের জন্য সারা বিশ্বের চলচ্চিত্র প্রেমিকারা অপেক্ষা করে থাকে। তালিকায় থাকুক বা না থাকুক তার নিজের পছন্দের মুভিটা, এই অনুষ্ঠানটি সবারি মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে থাকে।আর এবারে মানুষের আগ্রহ একটু বেশি ছিল অস্কারকে নিয়ে, কেননা অস্কার হলো এবারের সবচেয়ে সেরা চলচ্চিত্র, সেরা অভিনেতা, সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রতিভাদের কয়েক জন সেরা পরিচালকের মনোনয়নের তালিকায় আছেন।

হলিউডের ডলবি থিয়েটার একাডেমি অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার বিতরণী হয়ে গেল বাবরের মতোই। অনুষ্ঠানটি একঘয়ে হয়ে যায়নি আগে থেকে কিছু নাম অনুমতি থাকলেও। এত বছরের ইতিহাসে যা ঘটেছে তা দেখা যায়নি অস্কারে, ৯ ফেব্রুয়ারি সেরকম একটা ঘটনা ঘটে গেছে। যারা বিজয়ী হয়েছিল ৯২ তম অস্কার অনুষ্ঠান, রোর বাংলায় আজকের আয়োজন তাদের জয়ের কারণগুলোকে কেন্দ্র করে।

কিন্তু বিশ্ব জননী প্রভাব অনস্বীকার্য সাম্প্রতিককালের দক্ষিণ কোরিয়া থ্রিলার মুভিগুলো, এই ইন্ডাস্ট্রির অন্যান্য সেরা মুভিগুলো একটা স্বীকৃতি পেয়ে গেল প্যারাসাইট এর জয়ের মাধ্যমে। নিরষ্কুশভাবে বছরের সেরা চলচ্চিত্রের স্বীকৃতি পেয়ে গেল মুভিটি ,সেরা চলচ্চিত্র এবং বিদেশী ভাষা সেরা চলচ্চিত্র বিভাগে একই সাথে জয় করে মোট চারটি অস্কার। ১৯১৭ নিশ্চিত বাজি ধরে রেখেছিলেন অনেকেই স্যাম মেন্ডেসের, তিনটি অস্কার নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল এই টেকনিক্যাল বিভাগ গুলোর।সেরা চলচ্চিত্র

শেষ মুহূর্তের জন্য জমিয়ে রাখা হয় সবচেয়ে আকর্ষণীয় পুরস্কারটি, বিশ্ববাসীকে অস্কারের শেষ মুহূর্তে আক্ষরিক অর্থে একটা দক্ষিণ কোরিয়া টুইস্ট উপহার দিল। ১৯৪৭ সালে শুরু করে মূলত হলিউড কেন্দ্রিক অস্কার প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের বাইরের মুভিকে পুরস্কার দেয়। হলিউডকে টপকাতে পারেননি বিদেশি ভাষার কিছু চলচ্চিত্র মূল বিভাগে মনোনয়ন পাওয়া সত্ত্বেও। প্রথমে দক্ষিণ কোরিয়া এই প্রথা ভাঙলো ৭৩ বছর পরে, জাদুকরী প্রতিভায় জিতে নিলেন সেরা চলচ্চিত্র সহ চারটি অস্কার। অনেকে বৃস্তিত হয়েছে প্যারাসাইটকে জিততে দেখে, কিন্তু কাউকেই অসন্তুষ্ট বলা যায়না। মনোনীত অন্যান্য চলচ্চিত্র ছিল ফোড ভার্সাস ফেরারি এই বিভাগের, জোকার ,মেরেজ স্টরি ,১৯১৭,ওয়ান্স আপন আ টাইম ইন হলিউড, দা ম্যান অফ আইরিশ, লিটল উইমেন এবং জোজো রাবাটি।

অস্কার 2020নিজস্ব মহিমায় অন্যান্য নিঃসন্দেহে গেল কয়েক বছরের তুলনায় এ বছর এর মুভি গুলো ছিল অন্যান্য। তবে এই অসাধারণ মুভিগুলো সাথে লড়াই করলেও প্যারাসাইট ,ই এ বছরের সবচেয়ে বেশি এডোয়ার্ড জোয়ি মুভি ।বাধ সাধছিল ইতিহাসে কেবলমাত্র তার সাথে জড়িত ছিল। অস্কার কোন আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা নয়,একথা সরাসরি বং জুন বলে দিয়েছিলেন, স্থানীয় হলিউডের মুভিকে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন বং জুন।

কিন্তু বিশ্ব জননী প্রভাব অনস্বীকার্য সাম্প্রতিককালের দক্ষিণ কোরিয়া থ্রিলার মুভিগুলো, এই ইন্ডাস্ট্রির অন্যান্য সেরা মুভিগুলো একটা স্বীকৃতি পেয়ে গেল প্যারাসাইট এর জয়ের মাধ্যমে। নিরষ্কুশভাবে বছরের সেরা চলচ্চিত্রের স্বীকৃতি পেয়ে গেল মুভিটি ,সেরা চলচ্চিত্র এবং বিদেশী ভাষা সেরা চলচ্চিত্র বিভাগে একই সাথে জয় করে মোট চারটি অস্কার। ১৯১৭ নিশ্চিত বাজি ধরে রেখেছিলেন অনেকেই স্যাম মেন্ডেসের, তিনটি অস্কার নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল এই টেকনিক্যাল বিভাগ গুলোর।

সেরা পরিচালক

বং জুন হো এ বিভাগে প্রথম দক্ষিণ কোরিয়ার হিসেবে জিতে নিয়েছেন। অন্যরা ছিলেন মার্কিন স্কোরসেজি বিভাগের মনোনীত অন্যান্য ব্যক্তিরা,টড ফিলিপস এবং কোয়েন্টিন টারান্টিনো ও স্যাম মেন্ডেস ।জুন হোর কাছেও মার্টিন স্কোরসেজি আর কোয়েন্টিন টারান্টিনোকে পেরিয়ে পুরস্কার জেতাটা অবিশ্বাস্য ছিল। নিজের অস্কার স্পিচে স্করসেজির কাছ থেকে তার চলচ্চিত্র দীক্ষাপ্রাপ্তি বলে দাবি করেছেন। তার বিশাল সমর্থক তারান্টিনো নিজেও। নিজেকে প্রিয় কোরিয়ান পরিচালক বলে দাবি করেছেন ২০১৩ সালের দিকে জুন হোক।

অস্কার 2020এখন অবশ্য সন্দেহ নেই কারো কোরিয়ান থ্রিলার এর পথিকৃৎ কিম কি-দিইক কিংবা কিম হিইন জং এর পথ ধরে আশা পরিচালকের সমর্থন নিয়ে। প্যারাসাইটটির চেয়ে তার অন্যান্য কাজগুলো পিছিয়ে নেই । বিভিন্ন জনরা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে কখনো পিছিয়ে যাননি তিনি কুশলী ট্রাকিং স্টিয়ারধমী কাহিনি তার মূল শক্তি হলেও। নির্মাণের সময়ে উচ্চাভিলাষী স্পেশাল ইফেক্টের কাজ নিয়ে ঝামেলায় পরে গিয়েছিলেন তিনি ২০০৬ সালের দ্য হোস্ট , তবুও পিছিয়ে যাননি তিনি এ কাজে। সিরিয়াল কিলার ধর্মীয় মুভি গুলোর মধ্য আইকনিক মর্যাদা পেয়ে গেছেন মেমোরিস অফ মার্ডার। তার অস্কার জয়ী পথকে সুগম করে এসেছে এতদিন ধরে এই সব কাজ গুলো।

সেরা অভিনেতা

হোয়াকিন ফিনিক্স অ্যাওয়ার্ড মৌসুম পর্যন্ত সব জায়গায় পুরস্কার জিতে নিয়েছেন এমনকি অস্কার জয় অবধারিত ছিল বলা যায়। নতুন ইতিহাস গড়েছে এই যুগেও। কমিক বই এর চরিত্রে অভিনয় করে কেউ সেরা অভিনেতার অস্কার জয় করলেন এই প্রথমবারের মতো। জোকারের ভূমিকায় অভিনয়ের দায়িত্ব পালন করেছিলেন ২০০৮ সালে তিনি, প্রায় সকল মুভি প্রেমিকের জানার কথা যে অভিনেতা বিভাগের হিথ লেজারের অস্কার জয়ের কথা। এরপর এই প্রথমবারের মতো কেউ একটি চরিত্রে অভিনয় করে ভিন্ন দুই অভিনেতা অস্কার জিতলো দ্য গডফাদার এর পরে।

অস্কার 2020রবার্ট ডি নিরো এবং মারলোন ব্রণ্ডো দুই জন ভিটোকরলিয়নের ভূমিকায় অভিনয় করে এই সম্মাননা পেয়েছেন এর আগে। এ পর্যন্ত আসার পথ তার সুগোম ছিল না এ বছরের ফিনিক্সের জয়জয়কার হলেও। ওয়াক দ্য লাইন,দ্য মাস্টার ,গ্লাডিয়েটর ,দিয়ে তিনবার এর আগে মনোনীত হয়েছিলেন তিনি। ভালোভাবে তিনি নিজ দায়িত্বে ফিরে আসেন সে অভিনয় দায়িত্বে বিরোতি থাকলেও। প্রতিভাবান অভিনেতাদের একজন হিসেবে সবাই মানেও তাকে এসময় কালে, কিন্তু আন্ডাররেটেড রয়ে যাচ্ছিলেন কিছুটা।

জোকারের ভূমিকায় ভালো পারফরমান্স দেওয়ার প্রত্যাশা ছিল আকাশচুম্বী পেট্রোয়ালের পরে। ৫২পাউন্ড ওজন কমিয়েছে সেই ভার তিনি বহন করেছিলেন। অকালপ্রয়াত ভাই রিভারফিনিক্সের কথাও স্মরণ করেছেন তিনি ,নিজের অনুপ্রেরণা। অ্যাডাম ড্রাইভার ,লিওনার্দো ক্যাপ্রিও ,অ্যান্টোনিও ব্যান্ডেরাস এবং জোনাথন প্রাইস সেরা অভিনেতা বিভাগে মনোনীত অন্যান্য সদস্যবৃন্দ। ফিনিক্স জয়ী দীর্ঘ ক্যারিয়ার বিবেচনা, দ্বিমত করার কোন উপায় নেই এই ব্যক্তির সাথে। অচিরেই জেতার সুযোগ আর একটা পেয়ে যাবেন পরপর দুই বছরে দুবার মনোনয়ন পাওয়ার ড্রাইভার হয়তো।

Thank You for Visit.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button