Media
Trending

কী হলো অস্কার 2020 এর মঞ্চে? পর্ব (3)

কী হলো অস্কার 2020 এর মঞ্চে? পর্ব (3)

সেরা চিত্রনাট্য (অ্যাডাপ্টেড)

তাইকা ওয়াইতিতি জিতে নিয়েছেন জোজো রাবিট। হান্ড ফর দ্য ওয়াইল্ডারপিপলস নিউজিল্যান্ডের পরিচালক, হোয়াট ডু ইউ ডু ইন দ্য শ্যাডোস দিয়ে নিজের প্রতিভার জানান দিল ওবিশ্বজুড়ে তিনি পরিচিত লাভ করেছেন মাডের্লের থর রাগনারক পরিচালনা করে। খুব দ্রুতই হিউমারের মন জয় করে নেন সবার কাছে। উপন্যাস কিংবা সিনেমার সংখ্যা অগণিত ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ নিয়ে। ওয়াইতিতি শিশুতোষের আড়ালে দারুণ এক অনুপ্রেরণা কাহিনী লিখেছেন ।

কী হলো অস্কার 2020 এর মঞ্চে? পর্ব (3)ওয়াইতিতি অস্কার জয়ী প্রথম মুভি নির্মাতা,অস্কারটি উৎসর্গ করেছেন বিশ্বের সকল আদিবাসীদের উদ্দেশ্যে নিউজিল্যান্ডের আদিবাসীদের এই গর্বিত সদস্য। এই বিভাগে অন্যান্য ব্যক্তিরা(লিটল উইমেন) স্কট সিলভার (জোকার )এবং স্টিভেন জাইলিয়ান আইরিশম্যান ইত্যাদি। সত্য ঘটনাকে মুভিতে স্বল্প পরিমাণে ফুটে আনা হয়েছে ,দ্য টু পোস্ট, এবং আইরিসম্যান মুভি দুটো। উপন্যাসের চরিত্রগুলোকে আরো একবার সেলুলয়েডের পর্দায় জীবন্ত করেছেন লিটল উইমেন। স্কট সিলভার এবং টডফিলিপস কমিক বই এর সুপার ভিলেনের চরিত্রে ভিন্নমাত্রা যোগ করেছেন। বিনোদন জগতে প্রভাব ফেলার কারনে ইদানীংকালে তাইকা একটু আগিয়ে গেছেন অন্যদের থেকে।

সেরা চিত্রগ্রহ

রজার ডিকিন্স জিতে নিয়েছেন তার দ্বিতীয় অস্কার ১৯১৭ সালের মুভির জন্য ভিজুয়াল মাস্টারমাইন্ড। স্কাইফল অ্যাসাসিনেশন অফ জেসি জেমস সিকারিও থেকে শুরু করে মনে রাখার মত বহু কাজ আমাদের উপহার দিয়েছেন এই বর্ষীয়ান চিত্রগ্রাহক। তার কাজের সৌন্দর্য ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। প্রথম অস্কার জেতাটা ছিল লং ওভারডিজ ২০১৭সালের ১৪ মনোনয়নের ব্লেড রানার ২০৪৯ এর জন্য। আবার একটা বাস্তব কাজ ছিল ১৯১৭ সালের।

কী হলো অস্কার 2020 এর মঞ্চে? পর্ব (3)ফটোগ্রাফির কাজ টা এমন ভাবে করেছেন যে মুভিটি বাস্তবসম্মত করার জন্য ,যে দর্শকদের কাছে মনে হয়েছে যে যুদ্ধটা আসলে চারপাশে ঘটছে। এইরকম উচ্চভিলাষী একটা প্রজেক্ট এর বাস্তবায়ন করা সম্ভব হতো না তার ব্রিলিয়ান্ট ক্যামেরা ওয়াক ছাড়া। এই বিভাগে অন্যান্য ব্যক্তিবর্গরা হলেন, রোজার ডিকেন্স (১৯১৭)সালের লাইটহাউস লরেন্সের (জোকার) রবার্টসন (ওয়ান্স আপন দ্য টাইম ইন হলিউড ) ইত্যাদি। জারিন ব্লাশকি এবং দা লাইট হাউজ এর মাঝে অফুরন্ত সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। ভবিষ্যতে তার কাছ থেকে চোখ জুড়ানো কিছু কাজের আশা প্রত্যাশা করা যায়।

সেরা মিউজিক্যাল স্কোর

হিলডুর গোনাডোতিরের জয় ছিল অবধারিত জোকার মুভির সাউন্ডট্র্যাকের জন্যে এই বিভাগে। বছরের প্রথম ভাগে তিনি টিভি সিরিজ চেরনোবিল দিয়ে নিজের জাত চিনিয়েছিলেন। অভিনেতা ব্র্যাডলি কুপার কে তিনি পুরস্কার পাওয়ার পরে বিশেষ ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি মুভি প্রয়োজোক হিসাবে অ্যস্টার ইজ বর্ন দিয়ে সংগীত ক্যারিয়ারও প্রবেশ করেছেন গত বছরে মিউজিক্যাল ড্রামায়। এই বিভাগে অন্যান্য ব্যক্তিরা ছিলেন, থমাস নিউম্যা (১৯১৭)সালের আলেকজান্ডার ডেসপ্লা লিটল ম্যারেজ স্টোরি উইলিয়াম ইত্যাদি। সেরা অরজিনাল স্কোর বিভাগে অস্কার জিতে নিয়ে প্রথম নারী ছিলেন তিনি। তিন নারী অ্যকশন তারকা তার হাতে পুরস্কার তুলে দেন ব্রি লারসন, আর গাল গ্যাদোত ,ওয়েভার।

কী হলো অস্কার 2020 এর মঞ্চে? পর্ব (3)হিলডুর সুপার ভিলেন এর ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর নির্মাতা হিসেবে নিজেও কোন অংশে অন্যদের থেকে কম জানেন না। দ্য ডার্ক নাইট মুভিতে হ্যান্স জীমারের শ্রেষ্ঠ জোকারের অভিনয় নিশ্চয় মনে আছে সমস্ত দর্শকদের। উপযুক্ত সাউন্ডট্র্যাক বানানো আছে তাই অবশ্যই প্রয়োজন ছিল নতুন জোকার এর জন্য। হিলডুর কেবল স্ক্রিপ্ট পড়ে সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেছিলেন। এই থ্রিলার এর মূল বক্তব্য যে কতটা সূক্ষ্মভাবে অনুধাবন করেছেন ক্যারেক্টার স্টাডি ভিত্তিক এটাই প্রমাণিত হয়। সাব ওয়ে কিংবা কলমি জোকার মাথা থেকে বের করতেও বেগ পেতে হয়েছে। অবশ্য এর জন্য অস্কারটা তার প্রাপ্য ছিল।

সেরা অরিজিনাল সং

বার্নি টপিন্স ও এলটন জন রকেট ম্যান মুভিটির ,লাভ মি অ্যাগেইন গানটি, জন্য অস্কার জিতে নিয়েছেন। ট্যারেন আগারটন দুর্ভাগ্যবশত সেরা অভিনেতার মনোনয়ন পাননি গোল্ডেন গ্লোবে সেরা অভিনেতার পুরস্কার জিতেও। অবশ্য সেটা পুষিয়ে দেওয়ার জন্য না নিজের বায়োপিক এর জন্য লেখা অসাধারণ এই গানটির জন্য সে এমনিতেই অস্কারের অধিকারী হয়েছিলেন। দ্য লায়ন কিং এর জন্য ১৯৯৫ সালে প্রথম অস্কার পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু নিজের ক্রেটিভ পার্টনার বানি টপিপ্ন্সের সাথে মনোনয়ন পাওয়া এই প্রথম অস্কার ছিলো এটি, ৫৩ বছরের ক্যারিয়ারে বহু কিছু অর্জন করেছেন তিনি একই সাথে, অস্কার দিয়ে তিনি সেটাকে আরও পূর্ণতা করেছেন। বিশ্বজয়ের’ ক্ষমতা এখনও তাদের আছে তা সত্তর পার করেও দেখিয়ে দিয়েছেন তিনি।

কী হলো অস্কার 2020 এর মঞ্চে? পর্ব (3)সেরা অ্যানিমেশন শর্ট ফিল্ম

এবারের অস্কারও হোস্টবিহীন ছিল গত বছরের মতো। মজা করে এক দর্শক বললেন, প্যারাসাইট জিতল কি করে হোস্ট না থাকলে? একটি রাপার অ্যানিমেশনের আচমকা পারফরম্যান্স এডোয়ার্ড বাদে। ইউজেসের দ্য ব্রেকফাস্ট ক্লাব ,সে এনিথিং ,থেকে শুরু করে টাইটানিক সহ হলিউডের কিছু মিউজিক্যাল মুহূর্তগুলো এইখানে দেখানো হয়। এইচ মাইল মুভির একটি দৃশ্য দিয়ে মন্ট্যাজ অ্যনি এমিনেমের শেষে স্বয়ং নিজেই চলে আসেন মঞ্চে। এই মুভির হিপহপ গান ২০০২সালের, অস্কার পেয়েছিলেন তিনি লুজ ইওরসেলফ এর জন্য। প্রথম হিপহপ জনরায় গান ছিল এটি অস্কার পাওয়ার জন্য। অস্কার পাওয়ার কোনো আশা নেই ভেবে ২০০৩ সালে তিনি গান গাননি। অস্কার অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন ১৭ বছর পরে এবং ভক্তদের মনে আনন্দে মাতিয়ে তুলেছিলেন তিনি।

Thank You for Visit.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button