Media
Trending

ম্যান্ডেলা-2021

ম্যান্ডেলা (২০২১)-রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা

 

সিনেমার পর্দায় নানান বিতর্কিত বিষয় উপস্থাপনে আস্তে আস্তে ওস্তাদ হয়ে উঠছে ভারতীয় সিনেমহল। পরিচালক ম্যাডোনে অশ্বিন রাজনীতি আর জাতপাত একত্র করে হাস্যরস যোগ করে দর্শকদের সামনে এক অসামান্য মনোরঞ্জন উপস্থাপন করেছে। অশ্বিনের পরিচালক হিসাবে যাত্রা শুরু তামিল সিনেমা ‘ম্যান্ডেলা (২০২১)’ দিয়ে। ট্রেলার থেকে কাহানী সম্পর্কে ধারনা পাওয়া গেলেও এই এক কাহানীর মধ্যেই বিভিন্ন কুসংস্কার ও পারিবারিক কোন্দলের সুন্দর চিত্রের দেখা মেলে।

রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১):
রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১):

‘ম্যান্ডেলা’ শব্দ টি শোনা মাত্রই মাথায় আসে কোঁকড়া চুলের কৃষ্ণাঙ্গ এক লোকের মুখ, যে আফ্রিকার জনসাধারণের অধিকারের জন্য সংগ্রাম করেছে দীর্ঘকাল। ‘ম্যান্ডেলা’ এর মূখ্য চরিত্র ‘ স্মাইল ‘ এর চেহারাও কিছুটা একই। নিচু জাতের স্মাইল, যার জায়গা গ্রামের এক গাছের নিচে। গ্রামের তথাকথিত যারা উঁচু জাত, তাদের চুল-দাঁড়ি কামানো, বাড়ির বাসন মাজা আর কড়া রোদে পুড়ে লাইনে দাড়িয়ে তাদের চাল-ডাল এনে দেওয়াই মূলতপক্ষে তার জীবন। ১৫ বছর বয়সী এক ছেলে, সাইড কিকের সাথে একটা গাছের নিচে দিন এনে দিন খেয়ে কোনোরকমে দিন কেটে যাচ্ছিল স্মাইলের।

যোগি বাবু “স্মাইল” চরিত্রে বেশ সাবলীল অভিনয় করেছেন। যোগি বাবু এর আগে প্রায় ১৫০ সিনেমায় সাপোর্টিং রোলে অভিনয় করেছেন এবং অবশেষে তার প্রথম লিড রোলে সে সবার নজর কাড়তে পেরেছেন। শাহরুখ খান অভিনীত ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’ সিনেমা টি তেও তিনি ছোট একটি রোল করেছেন। একটা গ্রাকে নিয়ে এ সিনেমার গল্প। তবে এই গ্রামের গল্পের মধ্যেই জাতপাত, স্বাস্থ্য সচেতনতা, পারিবারিক দন্দ, রাজনৈতিক কলহ ও ভোট ব্যবসা সহ আরো অনেক বার্তা এই সিনেমাতে পাওয়া যায়।

সিনেমার প্রথম দৃশ্যে তামিলনাড়ুর অজপাড়াগাঁ সুড়াগুন্দি গ্রামের পুরুষ বাসিন্দারাদের নিজেদের দৈনন্দিন কাজের অংশ হিসাবে খোলা জায়গায় মলত্যাগের উদ্দেশ্যে রওনা হতে দেখা যায়। আর মহিলাদের এ কাজ ভোর হবার আগেই সেরে ফেলতে হয়। কিন্ত একদিন গ্রামবাসীদের নেতা তাদের জন্য একটা স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগারের ব্যবস্থা করে। এই শৌচাগার উদ্বোধনেই বিপত্তি বাদে।

নেতার স্ত্রী দু-জন, কিন্ত দু-জন ভিন্ন জাতের, দু-স্ত্রীর আবার দু-ছেলে। তারা দুই জন ছেলেই সঙ্গী-সাথী নিয়ে হাজির হয় শৌচাগারের উদ্বোধনীতে। এক ছেলে সুড়াগুন্দির উত্তরের প্রতিনিধি, আর অন্যজন দক্ষিণের। তাদের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়, যা এক পর্যায়ে সংঘর্ষের রুপ নেই। সৎ ভাইদের মধ্যকার দন্দ কেও সিনেমায় সুন্দর ভাবে তুলে ধরা হয়েছে। দুই ভাই ই বাবার উত্তরাধিকারত্ব চায়। কিন্তু ইচ্ছা কেবলই সম্পদ আর ক্ষমতা ভোগের, দায়িত্বের ভার কেও ই চায় না। সে কারণেই একজন নেতা এবং বাবা হিসাবে দু-ছেলের কারো কাছেই নিজের পদের ভার তুলে দিতে পারেনি তিনি।

রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১):
রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১):

৫০ এর ও বেশি শর্ট ফিল্ম, ওয়েব সিরিজ এবং কাইথি (২০১৯) ও ভিরা (২০১৯) সিনেমায় কাজ করা কান্না রভি, এক ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। এবং বলাই বাহুল্য, এ চরিত্রে সে তার অভিনয়দক্ষতার শতাংশ ঢেলে দিয়েছে। অন্য ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছে তামিল সিনেমার বেশ পরিচিত মুখ জি. এম. সুন্দর। শুধু প্রধান চরিত্রই নয়, এ সিনেমার সবচেয়ে ছোট চরিত্রও অভিনয়ের পরীক্ষাতে সম্পূর্ণ নম্বর পাওয়ার যোগ্য।

সিনেমার এক দৃশ্যে দেখা যায়, উত্তর ও দক্ষিণ এলাকার দু-জন লোক একই বাসে ওঠে। একজন বসেছেন, তার পাশের সিট টি খালি, তবুও অন্য লোক টি সে সিটে বসবে না। অন্য জাতের কাছে বসলে নিজ জাতের মান যাবে যে! তাই জাতের সম্মানার্থে সম্পূর্ণ পথ দাড়িয়ে থাকা টাই শ্রেয়। তবে মদের টাকা কম পড়লে তাদের একত্র হতে বাধে না। এক বোতল মদ দুজনে ভাগ করে চুপিসারে খেয়ে যে যার রাস্তাই আবার চলে যায়!

সিনেমার আর একটি বিশেষ চরিত্র থেনমোজি, যে একজন ডাকপিয়ন তবে নারী। এই চরিত্রে অভিনয় করেন বিখ্যাত মালায়লাম সিনেমা ‘কুম্বালংগি নাইটস’ এর সাথি চরিত্রে অভিনয় করা শীলা রাজকুমারী, তার এই চরিত্রের মাধ্যমেই সিনেমার মূল গল্পের মধ্যে ঢোকা। চুল-দাঁড়ি কামিয়ে আর মানুষের ফাই-ফরমাস খেটে অল্প অল্প করে জমানো বেশ কিছু

টাকা স্মাইলের বাসস্থান, সেই গাছে গুজে রাখা পুটলির ভেতর থেকে যখন হারিয়ে যায়, তখন সে একটা অ্যাকাউন্ট খুলতে পৌছায় পোস্ট অফিসে। কিন্তু অ্যাকাউন্ট খুলতে প্রয়োজনীয় নথিপত্রের কোনো টাই তার নেই। নিজেকে ভারতীয় নাগরিক প্রমান করতে প্রয়োজন যে নাগরিক সনদ সেটিও নেই স্মাইলের।

রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১)
রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১)

এমনকি নিজের আসল নামও সে জানে না। চারপাশের লোক,যে যা বলে ডাকে সে তাতেই সাড়া দেয়। ঠিক মতো মুখ বন্ধ করে রাখতে পারেনা তাই সবাই তাকে ‘স্মাইল’ বলে ডাকে,সে তাতেই খুশি। কিন্তু নথির জন্য ভাল নাম চায়। সাইড কিক আর পিওন আপা তার জন্য নতুন নাম হিসাবে ঠিক করে ‘নেলসন ম্যান্ডেলা ‘। তার যাবতীয় সব নথিপত্র এই নামেই সই হয়। গ্রামের নাপিত এভাবে হয়ে ওঠে ম্যান্ডেলা।

কোনো সিনেমা দেখে চোখ তখনই খুশি হয়, যখন সিনেমাটোগ্রাফি ভাল হয়। ম্যান্ডেলা সিনেমার সিনেমাটোগ্রাফি ছিল সুন্দর। সেই সঙ্গে ছিল মানানসই গান ও আবহসংগীত।তেলেগু ভাষা না জানলেও সুর, তাল আর টাইমিং এর গুনেই ভাবানুবাদ বোঝা যায় বেশ খানিক টাই। সিনেমাতে কাহানী বাদেও বেশ শক্তিশালী একটা দিক ছিল এর সংলাপ। হাস্যরস ও ব্যাঙ্গাত্মক সংলাপ পুরো সিনেমা জুড়ে দর্শকেদের মনোরঞ্জন করতে থাকে। সিনেমার এডিটিং ও ছিল চমৎকার।

এবার আসা যাক সিনেমার মূল অংশের আলোচনায়, যা হলো এর রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট। দু-ভায়ের কেও যখণ উত্তরাধিকারত্ব পায় না, তারা তখন স্বতান্ত্রিকভাবে নিবার্চনে দাড়ানোর সিদ্ধান নেয়। যদিও নির্বাচন ছিল সমগ্র গ্রামের নেতার পদের। কিন্তু নেতার দু-ছেলে নিজ নিজ এলাকার হয়ে প্রতিনিধিত্ব করে চলে।যার কারণে নির্বাচন হওয়ার আগেই গ্রামের মানুষেরা দু-ভাগে ভাগ হয়ে যায়। শুরু হয় ভোট নিশ্চিন্তের যুদ্ধ। গ্রাম ছাড়িয়ে শহরের ভোটার এমনকি দেশের বাইরের

ভোটার সংগ্রহের চেষ্টাও চলতে থাকে। কখনো ২০, কখনো বা ২০০০ রুপির টোকেনের লোভ দেখিয়ে তো কখনো বা স্বামীর দিব্যি দিয়ে, যতোরকম সম্ভব সব ভাবে দুই ভাই ভোট নিশ্চিত করতে থাকে।সবেমাত্র হওয়া ভোটার থেকে মৃত্যুপথযাত্রী বৃদ্ধ কাও কেই বাদ রাখা হয় না। তবে শেষ পর্যায়ে দু-জন কেই ম্যান্ডেলার শরণাপন্ন হতে হয়। সাথে সাথে বদলে যায় ম্যান্ডেলার পুরো জীবন। দেখা মেলে নিবার্চনের কটু চিত্রের।

রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১)
রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১)

 

দু-প্রার্থীর মাঝে ম্যান্ডেলা, তাকে নিতে হবে একটা সিদ্ধান্ত, যা প্রাথীদের জীবন বদলে দেবে এক পলকেই। তবে কিভাবে? আর কিই বা সেই সিদ্ধান্ত? এর সাথে ম্যান্ডেলারই বা কি সম্পর্ক? প্রশ্নের উত্তর জানতে দেখতে হবে সিনেমা টি। আড়াই ঘন্টার এই সিনেমার থেকে একটু চোখ সরানোই যেন মুশকিল। সাথে তো রয়েছেই চমৎকার ক্লাইম্যাক্স।

মাদ্রাজ ইন্সটিটিউট অফ টেকনোলোজি এর ছাত্র ম্যাডোনে অশ্বিনের সিনেমার জগতে পদার্পণ খুব একটা সহজ ছিল না। ছোট ছোট শর্ট ফিল্ম দিয়ে শুরু, তারপর তিনি আগাতে থাকেন তামিল ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির দিকে। সপ্তাহে ৬ দিন নিজের পড়াশোনা ঠিক রেখে, ব্যক্তি জীবনের কাজ সেরে ছুটির দিন তিনি ডুবে যেতেন সিনেমায়। অশ্বিন কেবল ম্যান্ডেলা সিনেমা টির পরিচালকই নন, চিত্রনাট্যকরও। তার সর্বপ্রথম সিনেমা এই ‘ম্যান্ডেলা ‘, যার জনপ্রিয়তা গগনচুম্বী। সিনেমা টার জন্যে দর্শকের ভালবাসার সাথে তিনি পেয়েছেন সমালোচকদের প্রশংসা ও।

রাজনীতি ও হাস্যরস মিশ্রিত এক অতুলনীয় সিনেমা, ম্যান্ডেলা (২০২১)

সিনেমার প্রথম টেলিভিশন প্রিমিয়াম হয় ‘স্টার বিজয়’ নামের একটি চ্যানেলে এবং পরে নেটফ্লিক্স ইন্ডিয়ায় সিনেমা টি মুক্তি পায়। অনেক বিগ বাজেট মুভির তুলনায় ‘ম্যান্ডেলা ‘ সিনেমার কাহানীর, অভিনয় ও প্রযুক্তি অনেকাংশেই অনেক ভাল।

Thanks For Visit

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Check Also
Close
Back to top button